বেতন-বোনাস পরিশোধ না করলে কালো তালিকাভুক্ত করার দাবি ডিইউজের

নওরোজ ডেস্ক: যেসব মিডিয়া হাউস সংবাদ মাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের বেতন-বোনাস দিতে গড়িমসি করে বা দিচ্ছে না তাদের কালো তালিকাভুক্ত করতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)। একই সঙ্গে এর প্রতিকারের জন্য মাননীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রীকে স্মারকলিপি দিয়েছে সংগঠনটি।

রোববার (৩ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবে ঈদের আগে সংবাদ মাধ্যমে বেতন-ভাতা পরিশোধ ও পূর্ণ বোনাস প্রদানের দাবিতে আয়োজিত সমাবেশ থেকে এ দাবি জানানো হয়। 

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএফইউজে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, বর্তমানে আমাদের সংবাদ মাধ্যমে করুণ অবস্থা বিরাজ করছে। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান করোনার অজুহাতে বেতন দিচ্ছে না বরং ছাঁটাই করছে। আমরা বার বার মালিক ও সরকারকে বলেছি, কিন্তু এ বিষয়ে কেউ কর্ণপাত করছে না।

মালিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, করোনায় অভাবে পড়ে কি নিজের গাড়িটি বিক্রি করে দিয়েছেন? না, এখন তো আপনারা হেলিকপ্টারে করে ঈদ করতে গ্রামে যান। অথচ আপনাদের কাছে আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের কোটি কোটি টাকা বেতন বকেয়া। সেসব বকেয়া আপনারা পরিশোধ করতে চান না। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ডিএফপিতে মিথ্যার বেসাতি গড়ে উঠেছে। তাই প্রতিষ্ঠানটি উঠিয়ে দিয়ে সেখানে ধর্মযাজকদের দিয়ে দোয়া পড়াতে হবে। তাতে যদি আপনাদের কিছুটা পাপ স্খলন হয়।

সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে ডিইউজের সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, প্রতিটি মাস আসে আর আমাদের সাংবাদিকরা ক্ষতবিক্ষত হন ধারদেনার দায়ে। কারণ আমাদের বেতন কবে হবে আমরা জানি না। এসব অনিশ্চয়তা দূর করতে হবে এবং ঈদের আগে যেসব প্রতিষ্ঠান সাংবাদিকদের বেতন ও পূর্ণ বোনাস দেবে না, কালো তালিকাভুক্ত করে তাদের ডিক্লারেশন বাতিল করে দিতে হবে।

ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন বলেন, আপনারা ঈদের আগেই বেতন-ভাতা ও পূর্ণ বোনাস পরিশোধ করে দিন। আমরা ঈদ উল ফিতরের সময় কারা কারা বেতন-বোনাস পরিশোধ করেননি তাদের তালিকা করেছি। এবারো করবো। এই তালিকা কোথায় পাঠাবো সেটা প্রকাশ্যে বলতে চাই না। আপনারা সতর্ক হয়ে যান।

ডিইউজের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, বেতন-ভাতার ন্যায্য দাবির জন্য আজকে আমাদের আন্দোলন করতে হয়। অথচ এসব সংবাদ মাধ্যম নির্লজ্জের মতো সরকারের কাছ থেকে নানা সুযোগ-সুবিধা নিয়েও সাংবাদিকদের পাওনা পরিশোধ করেন না। তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নকে কঠোর হতে বাধ্য করবেন না। 

ডিইউজের যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলমের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মানিক লাল ঘোষ, সাংগঠনিক সম্পাদক এ জিহাদুর রহমান জিহাদ, দপ্তর সম্পাদক আমানউল্লাহ আমান, কল্যাণ সম্পাদক জুবায়ের রহমান চৌধুরী, নির্বাহী পরিষদ সদস্য সলিম উল্লাহ সেলিম, রেহানা পারভীন, শফিক বাশার, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শাজাহান মিয়া, সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আছাদুজ্জামান, ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের কার্যনিবার্হী সদস্য মনসুর আহমেদসহ প্রমুখ।

পরে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রীর কাছে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মানিক লাল ঘোষ, যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক এ জিহাদুর রহমান জিহাদ, দপ্তর সম্পাদক আমানউল্লাহ আমান।

মিডিয়া এর সাম্প্রতিক